Govt Schemes – সুখবর! পুজোর আগে সকল রাজ্যবাসীকে ১০ হাজার টাকা দেবে পশ্চিমবঙ্গ সরকার।

Govt Schemes – পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় রাজ্যের কৃষকদের আর্থিক সহায়তা করার জন্য কৃষক বন্ধু (Krishak Bondhu) যোজনা চালু করেছেন। এই যোজনার আওতায় রাজ্যের চাষিদের আর্থিক সাহায্য করা হয়। এই কৃষক বন্ধু প্রকল্পটি সরকার কর্তৃক ১৮ থেকে ৬০ বছর বয়সী কৃষকদের দেওয়া হয়। কৃষক বন্ধু যোজনার আওতায় কৃষকদের বছরে ৫,০০০ টাকা আর্থিক সহায়তা (Govt Schemes) দেওয়া হয়। রবিশস্য ও খারিফ শস্য চাষের সময় এই অনুদানের অর্থ পান কৃষকরা।

WhatsApp Group Join Now
Telegram Group Join Now

এই Govt Schemes থেকে প্রাপ্ত অর্থ আবেদনকারীর ব্যাঙ্ক অ্যাকাউন্টে পাঠানো হয়। তবে কৃষকদের জমির পরিমাণ ১ একর হলেই কৃষকরা এই কৃষক বন্ধু যোজনার সুবিধা পাবেন। তবে এবার সরকার চাষিদের এই প্রকল্পের টাকা বাড়ানোর সিদ্ধান্ত নিয়েছেন। যে সব কৃষকরা এতদিন বার্ষিক ৫,০০০ টাকা আর্থিক সহায়তা পেতেন, তারা এখন ১০,০০০ টাকা আর্থিক সহায়তা পাবেন।

এবার থেকে রাজ্য সরকারের (West Bengal) কৃষক বন্ধু প্রকল্পে চাষিরা ১০,০০০ টাকা করে পাবেন। আর ক্ষুদ্র কৃষকদের বছরে ৪ হাজার টাকা করে সহায়তা দেওয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছেন সরকার। সূত্রে মারফত খবর এই বছর দুর্গাপুজোর আগেই কৃষক বন্ধুর দুটি কিস্তির অর্থই দিয়ে দেওয়া হবে। অর্থাৎ দুর্গাপুজোর আগে চাষিদের মধ্যে খুশির হাওয়া বইতে চলেছে।

কৃষক বন্ধু প্রকল্পে (Krishak Bondhu Govt Schemes) কারা আবেদন করতে পারবেন?

১) আবেদনকারীকে পশ্চিমবঙ্গের স্থায়ী বাসিন্দা হতে হবে।
২) আবেদনকারীর ১ একরের কম জমি থাকলেই আবেদন করতে পারবেন।
৩) ১৮ থেকে ৬০ বছর বয়সী কৃষকরা এই প্রকল্পে আবেদন করতে পারবেন।

আরও পড়ুন – WB Govt karma tirtho Prakalpo: আপনি নতুন ব্যবসা শুরু করতে চাইছেন কি?তাহলে করতে পারেন,কারন সরকার ফ্রীতে দোকান ঘর দিচ্ছে

কৃষক বন্ধু প্রকল্পে (Krishak Bondhu) কি কি সুবিধা পাওয়া যায়?

১) এবার থেকে এই প্রকল্পের সুবিধাভোগীদের ১০,০০০ টাকা প্রদান করা হবে।
২) এর পাশাপাশি আবেদনকারীকে ডেথ বেনিফিটও দেওয়া হয়। অর্থাৎ আবেদনকারী মারা গেলে তার পরিবারকে সরকার ২ লক্ষ টাকা দেবে।
৩) কৃষক বন্ধু প্রকল্পের আওতায় থাকা কৃষকরা শস্য বীমার সুবিধাও পাবেন।

এই প্রকল্পের (Govt Schemes) সুবিধা নিতে হলে আবেদনকারীদের নির্দিষ্ট পোর্টালে গিয়ে নাম রেসজিস্ট্রেশন করতে হবে। নাম নিবন্ধন করা ছাড়া এই প্রকল্পের সুবিধা নিতে পারবেন না। আবেদনকারীরা আবেদন করার পর তালিকায় নিজের নাম আছে কিনা খুব সহজেই চেক করতে পারেন। নিজের নাম চেক করার জন্য তাদের কোন অফিসে যেতে হবে না, মোবাইল ও কম্পিউটারের মাধ্যমে অনলাইনে তালিকায় নাম চেক করা যায়। আপনিও চাষবাস করেন কি? তাহলে আর দেরি না করে এই প্রকল্পে আবেদন করে এর সুবিধা উপভোগ করুন।

আরও পড়ুন – Post office schemes: 95 টাকা দিয়ে বিনিয়োগ করলে কয়েক লক্ষ টাকা পেতে পারেন

Leave a comment

JoinJoin